না.গঞ্জে অটোচালক-লাইনম্যানদের পিটুনিতে যুবলীগ নেতার মৃত্যু

শেয়ার করুণ

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নজরুল ইসলাম ভূঁইয়া নামের এক যুবলীগ নেতাকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৫ জানুয়ারি) বিকেলে উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের মাঝেরচর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে সোনারগাঁ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মহসিন জানান, নিহত নজরুল নোয়াগাঁও ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সম্পাদক। তিনি একজন রড-স্টিল ব্যবসায়ী। নজরুল নোয়াগাঁও ইউনিয়নের চর নোয়াগাঁও গ্রামের মৃত শফেদ আলী ভূঁইয়ার ছেলে।

তিনি জানান, অটোরিকশা থেকে নেমে যাওয়াকে কেন্দ্র করে মাঝেরচর অটোরিকশা স্ট্যান্ডের লাইনম্যান ও অটোরিকশা চালকদের সঙ্গে বাগ-বিতণ্ডা হয় নজরুলের। পরে তাকে মারধর করেন অটোচালক ও লাইনম্যানেরা। পিটুনিতে অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার পর নজরুল ইসলামকে আড়াইহাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্ত্রী আসমা আক্তার জানান, তার স্বামী নজরুল ইসলাম রূপগঞ্জের ভূলতা গাউছিয়া এলাকায় ব্যবসায়িক কাজে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে জামপুর ইউনিয়নের মাঝেরচর বাসস্ট্যান্ড থেকে গাউছিয়া যাওয়ার জন্য অটোরিকশায় ওঠেন। দীর্ঘ সময় কোনো যাত্রী না ওঠার কারণে তিনি অটোরিকশা থেকে নেমে বিকল্প পথে যাওয়ার জন্য চেষ্টা করেন।

এ সময় তাকে বাধা দেন অটোরিকশার লাইনম্যান জাকির হোসেন ও অটোচালক দাইয়ান। পরে তাদের তর্ক-বিতর্ক ও ধ্বস্তাধস্তি শুরু হয়। একপর্যায়ে লাইনম্যান জাকির ও দাইয়ানের হাতে থাকা লাঠি দিয়ে নজরুলের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করেন। এ সময় জাকির ও দাইয়ানের সঙ্গে বাসস্ট্যান্ডের অন্যান্য অটোচালকরা তাকে কিল ঘুসি দিয়ে মারধর করেন। তাদের পিটুনিতে ঘটনাস্থলে অজ্ঞান হয়ে পড়লে নজরুলকে আড়াইহাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নোয়াগাঁও ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মোবারক হোসেন বলেন, নজরুল ইসলাম ধন্ধি বাজারে রড ও স্টিলের ব্যবসা করতেন। তিনি রাজনীতি করলেও নিরীহ প্রকৃতির ছিলেন। তার এমন মৃত্যু মেনে নেওয়া যায় না। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের চিহ্নিত করে উপযুক্ত বিচার দাবি করি।

সোনারগাঁ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মহসিন বলেন, এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। দোষীদের গ্রেপ্তারে পুলিশ কাজ করে যাচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুণ