না.গঞ্জে পরকীয়ার জেরে গৃহবধূকে হত্যা

শেয়ার করুণ

রূপগঞ্জে হাফসা আক্তার কাকলী (২৭) নামে এক গৃহবধুকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির স্বজনদের বিরুদ্ধে।

আজ শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) এ ঘটনায় নিহত কাকলীর পিতা ইসমাঈল মিয়া মামুন বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামি করে রূপগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- নিহত হাফসা আক্তার কাকলীর স্বামী সাইফুল ইসলাম শাকিল মোল্লা (৩২), শ্বশুর আব্দুল গণি মোল্লা (৫৮), শ্বাশুরী শাহিদা বেগম (৫২), ননদ সিমা বেগম (২৭) ও মামা শ্বশুর মোক্তার হোসেনকে (৪৮)। এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের শিংলাবো গ্রামে এ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটে।

রূপগঞ্জ থানা পুলিশ জানায়, রূপগঞ্জের ভুলতা ইউনিয়নের লাভড়াপাড়া গ্রামের ইসমাঈল মিয়া মামুনের মেয়ে কাকলীর সঙ্গে ছয় বছর আগে শিংলাবো গ্রামের আব্দুস ছালাম মিয়ার ছেলে সাইফুল ইসলামের সঙ্গে বিয়ে হয়। পরে কন্যা সাইফা আক্তার (৫) ও পুত্র আবদুল্লাহর (২) জন্ম হয়। গত এক বছর ধরে সাইফুল ইসলাম পরকিয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় স্ত্রী কাকলী ও স্বামী সাইফুল ইসলামের মধ্যে পারিবারিক কলহ লেগেই আসছিলো। এই নিয়ে গত ১১ জানুয়ারি বিকেল সাড়ে চারটায় কাকলী তার ছেলে-মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যাওয়ার প্রস্তুতি নেয়। এ সময় সাইফুল ইসলাম ও কাকলীর মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে সাইফুল ইসলাম ও তার পরিবারের সদস্যরা কাকলীকে পিটিয়ে জখম করে। কাকলীর ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে রূপগঞ্জের ইউএস বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাতে চিকিৎসকরা কাকলীকে মৃত ঘোষণা করে। খবর পেয়ে কাকলীর স্বামী ও পরিবারের সদস্যরা পালিয়ে যায়। কাকলীর হাত, মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখমের দাগ রয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা রুজু করা হয়েছে। এ মামলার আসামিরা ঘটনার পর থেকে পলাতক আছে। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুণ